Connect with us

ক্রিকেট

মাশরাফি বিন মর্তুজাও প্রেমে ব্যর্থ হয়েছিলেন!

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। পেশাগত জীবনে তিনি দেশের এক জীবন্ত কিংবদন্তি। রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার কারণে অনেকের কাছে তিনি অপ্রিয় হয়েছেন, তবে সিংহভাগ মানুষই খেলোয়াড় মাশরাফিকে এখনো প্রচণ্ড ভালোবাসেন এবং ভালোবেসেই যাবেন। ১৬ কোটি বাংলাদেশীর ভালোবাসায় সিক্ত মাশরাফিও তার উঠতি বয়সে প্রেম করেছেন। এমনকি তার স্ত্রী সুমনা হক সুমীর সাথেও গাঁটছড়া বেঁধেছেন ভালোবেসেই। তবে সুমী মাশরাফির প্রথম ভালোবাসা নন। তার আগেও এক মেয়ের সাথে সত্যিকার অর্থেই প্রেমে আবদ্ধ ছিলেন ম্যাশ।

মাশরাফির আত্মজীবনী ‘মাশরাফি’তে তার ব্যক্তি জীবনের অনেক কিছুই উঠে এসেছে। সেই বইতেই মাশরাফি তার স্কুল জীবনের প্রেমের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তিনি যখন নবম-দশম শ্রেণিতে পড়তেন, তখন প্রথম প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। স্কুল পেরিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকের প্রথম বর্ষ পর্যন্ত ছিল সেই প্রেম। কিন্তু তাদের সম্পর্কের কোনো ভবিষ্যৎ ছিল না। বিশেষ করে দুইজনের পরিবার তাদের সম্পর্ক কোনোভাবেই মেনে নেবেন না বলে নিশ্চিত হয়েছিলেন। যার ফলে মাশরাফির সেই প্রেম পরিণয়ে রূপ নেয়নি। বরং থমকে কলেজ বেলাতেই।

সুমনা হক সুমীর সাথে যেভাবে প্রেম হয়

মাশরাফি এবং সুমী ছিলেন প্রতিবেশী। দুজনের কাছাকাছি বাড়ি হওয়ার কারণে আগে থেকেই চেনা জানা ছিল। তবে তখনো তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ কোনো সম্পর্ক ছিল না। সময়টা তখন ২০০২ সাল। নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে মারাত্মক ইনজুরিতে পড়েন মাশরাফি। চোট নিয়ে দেশে ফেরত আসেন। ঠিক সময়েই তার প্রথম প্রেম ভেঙে যায়। ফলে তখন একপ্রকার ‘দেবদাস’ হয়ে চলাফেরা করতেন ম্যাশ। ক্লাসের সবচেয়ে বাউন্ডুলে ছেলেটি হটাৎ করেই চুপচাপ হয়ে যান। বিষয়টি তখন নজরে পড়ে সুমীর।

স্ত্রীর সাথে মাশরাফি বিন মর্তুজা; Image Source: Instagram

কিন্তু তখনো তাদের প্রেমের সূচনা হয়নি। কিছুদিন পরেই ছিল মাশরাফির উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। নিজের ইচ্ছা না থাকলেও পরিবারের চাপে তিনি পরীক্ষা দিতে বাধ্য হন। কিন্তু পরীক্ষার জন্য যে প্রস্তুতি নেবেন, তার জন্য মাশরাফির কাছে কোনো নোট বা খাতা ছিল না। একদিন কলেজ থেকে ফেরার পথে সুমীর সাথে নোটের বিষয়ে কথা হয়। নোট নেওয়া থেকেই মূলত তাদের সম্পর্কের শুরু। নোট নিতে নিতে একদিন সুমীদের ফোন নাম্বার নেয় মাশরাফি। এরপর থেকে কারণে-অকারণে তাদের দুজনের মুঠোফোনে আলাপ হতে থাকে। সেটা এক সময় প্রেমে রূপ নেয়। প্রস্তাবটা অবশ্য মাশরাফিই প্রথম দিয়েছিলেন। তাদের দুজনের এক কমন বন্ধুর মাধ্যমে বিশেষ এক কায়দায় মাশরাফি প্রস্তাব পাঠান। যা একেবারেই ফেলতে পারেননি সুমী।

স্ত্রীকে সাথে নিয়ে বাইকে ঘুরছেন মাশরাফি; Image Source: Instagram

তাদের সেই সম্পর্ক এক সময় খুবই সিরিয়াস পর্যায়ে চলে যায়। এমনকি তারা পালিয়ে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত পর্যন্ত নেন। কিন্তু কোনো এক কারণে তখন বিয়ে করা হয়নি। এদিকে মাশরাফিএ চেয়েছিলেন নিজের ক্যারিয়ারটা আরো একটু শক্তপোক্ত হোক, তারপরই বিয়েটা সারবেন। কিন্তু সুমীকে হারানোর ভয় থেকেই তিনি দ্রুত বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন।

এবং বিয়ে

২০০৩ বিশ্বকাপের আগে কেনিয়াতে সিরিজ খেলতে যায় বাংলাদেশ। সেখান থেকেই মাশরাফি তার ছোটমামা নাহিদ সাহেবের কাছে ফোন করে বিয়ে করবেন বলে জানান। সেটা জেনে নাহিদ মামা প্রথমে খুশি হলেও পরে অবাক হন মাশরাফি মেয়ে ঠিক করে রাখার কথা শুনে। ম্যাশ আগে থেকেই তার মামির কাছে প্রেমের বিষয়ে জানিয়ে রেখেছিলেন। নাহিদ মামাকে মেয়ের বিষয়ে সবকিছু মামীর কাছে থেকে শুনতে বলেন। সবকিছু জানার পর মাশরাফির মামার কোনো সমস্যা ছিল না। কারণ সুমীদের পরিবার আগে থেকেই বেশ সম্ভ্রান্ত। কিন্তু সমস্যা হলো এটা প্রেমের বিয়ে। মাশরাফির বাবা নিজেও প্রেম করে বিয়ে করেছেন, কিন্তু ছেলের প্রেমের বিয়ে মানতে তার কিছুটা আপত্তি ছিল।

সন্তানদের সাথে মাশরাফি দম্পতি; Image Source: Instagram

এদিকে মেয়ের পরিবারও রাজি ছিল না। তাদের পরিবারের অনেক সদস্য মাশরাফির ক্যারিয়ার নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন এবং ছেলে হিসেবে ভালো হবে না বলে ধারণা ছিল তাদের। এ কারণে তারা প্রথমে রাজি ছিলেন। কিন্তু এদিকে মাশরাফি ও সুমনা জেদাজেদি শুরু করেন। তখন নাহিদ মামা দুই পরিবারকে হুঙ্কার দিয়ে বলেন, তারা রাজি না হলে তিনি নিজে দুইজনের বিয়ে দিবেন। তখন দুই পরিবার নরম হন। এবং বিয়েতে সম্মতি দেন। তবে এর পেছনে সময় চলে গেছে প্রায় তিন বছর।

অবশেষে ২০০৬ সালের ৭ সেপ্টেম্বর মাশরাফি বিন মর্তুজা ও সুমনা হক সুমী বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। একসাথে তারা দুইজন এক যুগের বেশি সময় পার করেছেন। কিন্তু আজো অটুট রয়েছে দুজনের অকৃত্তিম ভালোবাসা। তাদের ঘর আলো করে আছেন মেয়ে হুমায়রা এবং ছেলে সাহেল।

তথ্যসূত্র: দেবব্রত মুখোপাধ্যায়ের ‘মাশরাফি’ বই

Featured Image Source: Instagram

1 Comment

1 Comment

  1. মাশরাফি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More in ক্রিকেট