Connect with us

নিউজ

নিজের বিয়ের অনুষ্ঠানে সিরিয়ায় আহত শিশুদের অপারেশনের জন্য সাহায্য চাইলেন মেসুত ওজিল

আধুনিক ফুটবলের অন্যতম সফল এবং জনপ্রিয় মিডফিল্ডার মেসুত ওজিল। ২০১৪ সালে জার্মানদের বিশ্বকাপ জয়ে সবচেয়ে বড় ভূমিকা ছিলো তার। মূলত তার নির্ভুল পাস এবং চোখ জুড়ানো অ্যাসিস্টে মুগ্ধ হয়ে তাকে ভালোবেসেছে গোটা ফুটবল বিশ্ব। সেই মেসুত ওজিলও ব্যাচেলর জীবনের সমাপ্তি ঘোষনা করে গত শুক্রবার বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।দীর্ঘদিনের প্রেমিকা, সাবেক মিস তুর্কি খ্যাত আমিন গুলসেকেই বিয়ে করেন তিনি।

বিয়েতে ভাষণ দিচ্ছেন এরদোগান; Image Source: Straits Times

তুরস্কের রাজধানী ইস্তাম্বুলের একটি পাঁচতারকা হোটেলে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয় নতুন এই মুসলিম দম্পতির বিয়ের আয়োজন। বিয়েতে ওজিলের উকিল বাবা হন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেসেপ তাইপে এরদোগান। সেই সাথে উক্ত অনুষ্ঠানে এরদোগানের স্ত্রীসহ আরো অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তিত্ব উপস্থিত ছিলেন।

ওজিল এবং গুলসে; Image Source: BalakanM

তুরস্কের রীতিতে বিয়ের পুরো আয়োজন সম্পূর্ণ হয়। নাচ, গান এবং প্রচুর খাওয়াদাওয়াও হয় সেখানে। কিন্তু শেষমেশ অতিথিদের নিকট অকল্পনীয় এক উপহার চেয়ে সবাইকে অবাক করে দেন মেসুত ওজিল। তিনি তুরস্কের রেডক্রিসেন্টের হয়ে সিরিয়ায় চলমান সহিংসতায় আহত শিশুদের জন্য ধনকুবের অতিথিদের নিকট সাহায্য চেয়ে বসেন।

নবদম্পতি; Image Source: BBC

শুধু সাহায্য চেয়েই ক্ষ্যান্ত হননি ৩০ বছর বয়সী এই আর্সেনাল মিডফিল্ডার। নববধূ আমিন গুলসেকে সঙ্গে নিয়ে ১০০০ আহত শিশুর অপারেশনের কাজ সম্পন্ন করার ঘোষনা দেন তিনি। ওজিল জানান, এই আহত শিশুদের মধ্যে কেউ কেউ বোমার আঘাতে হাত-পা হারিয়েছে, কেউবা চোখ হারিয়েছে। মূলত নির্যাতিত মুসলিমদের জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে অন্যদেরও আহ্বান জানানোই ছিলো বিয়ের অনুষ্ঠানে এই ঘোষনার মূল লক্ষ্য।

অতিথিদের সঙ্গে নবদম্পতি; Image Source: Mirror

বিয়ের অনুষ্ঠানে তার এমন ঘোষনায় আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন এরদোগান। অতঃপর ওজিলকে জড়িয়ে ধরেন তিনি। সেই সাথে উপস্থিত বেশিরভাগ অতিথিই সামর্থ্য অনুযায়ী সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দেন। যদিও সুবিধাবঞ্চিত কিংবা অসুস্থদের এই প্রথম তিনি সাহায্য করছেন তা কিন্তু নয়। এর আগে ২০১৪ সালে বিশ্বকাপ জেতার পর প্রায় আড়াইলাখ ইউরো খরচ করে ২৩ জন ব্রাজিলিয়ান শিশুর অপারেশন করিয়ে দেন ওজিল। তখন থেকেই সুনাম কুড়াতে থাকেন তিনি।

জার্মানির জার্সিতে ওজিল; Image Source: Independent

ওজিলের পূর্ব পুরুষরা তুরস্ক থেকে উন্নত জীবনের আশায় গত শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে জার্মানিতে পাড়ি জমায়। সেই সুবাদে জার্মানিতে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। জার্মানিকে একটি বিশ্বকাপও উপহার দিয়েছেন ভুবনবিখ্যাত এই অ্যাসিস্ট মাস্টার। কিন্তু গতবছর বিশ্বকাপের পূর্বে তুরস্কের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করে ছবি তোলার অপরাধে জার্মান ফুটবল ফেডারেশন তাকে অপমান করে। যার কারণে জার্মানির হয়ে না খেলার ঘোষনা দেন তিনি। অতঃপর জার্মানি ছেড়ে তুরস্ক এবং লন্ডনে বসবাস শুরু করেন ওজিল।

Featured Image: Daily Mirror

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More in নিউজ