Connect with us

ফুটবল

ইংল্যান্ডের ফুটবল ইন্ডাস্ট্রিগুলোর অবস্থান এবং সফলতা

(Photo by Laurence Griffiths/Getty Images)

গত শতাব্দীর শুরু থেকেই ইংল্যান্ডে শহর কেন্দ্রিক ফুটবল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। আর এই জনপ্রিয়তা সময়ের পরিক্রমায় সর্বোচ্ছ জায়গায় পৌঁছে গেছে। ইংল্যান্ডে চলমান কয়েকটি প্রথম ও দ্বিতীয় সাড়ির লিগে যতগুলো ক্লাব ফুটবল চালিয়ে যাচ্ছে তা শীর্ষ ৫ লিগের অন্য কোনো দেশেই প্রচলিত নয়। নিজেদের ফুটবলারদের কল্যাণে বিভিন্ন সময় আন্তর্জাতিক ফুটবলেও সফলতা কুড়িয়েছে দেশটি।

গত বিশ্বকাপে ইংরেজ ফুটবলারদের উদযাপন; Image Source: Guardian

এখন সারা বিশ্বের ফুটবল ভক্তদের নিকট সর্বাধিক জনপ্রিয় ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ। প্রিমিয়ার লিগের এমন খ্যাতি একদিনে তৈরি হয়নি। এর পেছনে অবদান রয়েছে ইংল্যান্ডের কয়েকটি বিখ্যাত শহরের একাধিক ক্লাব ও তাদের একাডেমি সমূহের। লন্ডন, মার্সিসাইড, ম্যানচেস্টার এ ক্ষেত্রে অন্য শহরগুলোর থেকে এগিয়ে থাকবে। চলুন জানা যাক ইংলিশ ফুটবলে এই শহরগুলোর অবদান এবং কার্যক্রম সম্পর্কে।

লন্ডন

প্রাচীনকালে লন্ডন বিখ্যাত ছিলো টেমস নদীর কারণে। বর্তমানে এটি বিখ্যাত শিক্ষা, সংস্কৃতি এবং উন্নত জীবনযাপনের জন্য। তবে কয়েকটি ফুটবল ক্লাব লন্ডনের এই খ্যাতি এবং মর্যাদা আরো বাড়িয়ে তুলেছে। আর্সেনাল, টটেনহাম, ফুলহাম, চেলসি, ক্রিস্টাল প্যালেসের মতো আরো একাধিক ঐতিহ্যবাহী ক্লাব রয়েছে এই শহরে। আর এই ক্লাবগুলোর কল্যাণে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের অন্যতম বৃহৎ একটি আকর্ষণ থাকে লন্ডনের অলিগলিতে।

চেলসির কিংবদন্তিরা; Image Source: MetroUk

পরিসংখ্যান অনুসারে প্রিমিয়ার লিগের সবথেকে বেশি ইংরেজ খেলোয়াড় উঠে এসেছে লন্ডন থেকেই। চলতি বছরের মাঝামাঝি সময়ের হিসেবে লন্ডনে জন্মানো ১১১ জন ফুটবলার বিভিন্ন সময় প্রিমিয়ার লিগ মাতিয়েছেন। তাদের কেউ কেউ এখনও নিয়মিত খেলছেন। ইউরোপিয়ান ফুটবলে যতগুলো শহর থেকে ফুটবলার তৈরি হয়েছে তাদের মধ্যে এই লন্ডন শহর থাকবে শীর্ষ পাঁচে। লন্ডনে বেড়ে উঠা কিংবদন্তিদের মধ্যে জ্যাক উইলশায়ার, ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড, হ্যারি কেন, জন টেরি, গ্যারি কাহিলরা উল্লেখযোগ্য।

মার্সিসাইড

বন্দরনগরী মার্সিসাইডে রয়েছে প্রিমিয়ার লিগের দুই শক্তিশালী ফুটবল ক্লাব এভারটন ও লিভারপুল। উভয় দলের একাডেমিই বিশ্বমানের। শিরোপা ও খ্যাতির দিক দিয়ে লিভারপুল এগিয়ে থাকলেও এভারটনের ফুটবল একাডেমি লিভারপুলের তুলনায় বেশ উন্নত। তারকা খেলোয়াড় গড়ে তোলার ক্ষেত্রে ইংল্যান্ডের সবচেয়ে সফল শহর এ মার্সিসাইড। স্টিভেন জেরার্ড, ওয়েন রুনির মতো প্রিমিয়ার লিগের অনেক বিখ্যাত খেলোয়াড়ের ফুটবল জীবনের শুরু হয়েছিলো মার্সিসাইডের এই দুই ক্লাবের ফুটবল একাডেমিতে।

স্টিভেন জেরার্ড; Image Source: IrishMirror

তারকা খেলোয়াড়দের উত্থান মার্সিসাইডের এ দুই ক্লাবের ফুটবল একাডেমি থেকেই। জেরার্ড তার পুরো ফুটবল ক্যারিয়ার লিভারপুলে কাটিয়ে তৈরি করেছেন অনন্য এক মাইলফলক। বর্তমান সময়ে মার্সিসাইড থেকে উঠে আসা তারকাদের মধ্যে ট্রেন্ট আলেক্সান্ডার অন্যতম। লিভারপুলের একাডেমিতে থাকাকালীন ১৭ বছর বয়সে মূল দলে অভিষেক হয় তার। গত দুই মৌসুমে তার অসাধারণ পারফরম্যান্স ভবিষ্যতে আরো ভালো কিছুর ইঙ্গিত দেয়।

ম্যানচেস্টার

বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা দুই ক্লাব, নগর প্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার সিটি ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। দল দুটোর মধ্যকার প্রতিদ্বন্দ্বিতার উত্তাপ মাঠের খেলায় যেমন, মাঠের বাইরে সমর্থকদের মাঝেও তেমন। তবে উভয় দলই একাডেমিক ফুটবলের দিক দিয়ে বেশ শক্তিশালী। কারণ আধুনিক ফুটবলের সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে তারাও ফুটবলার তৈরিতে মনোযোগী হয়েছেন।

ডেভিড বেকহাম; Image Source: Guardian

অন্যদিকে, পৃথিবীর সেরা ৫টি ফুটবল একাডেমির একটি ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ফুটবল একাডেমিটি। তারকা খেলোয়াড় তৈরিতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ইতিহাস বেশ সমৃদ্ধ। জর্জ বেস্ট, ডেভিড বেকহাম, রায়ান গিগসের মতো কিংবদন্তি খেলোয়াড়দের উত্থান ম্যানইউর ফুটবল একাডেমি থেকে। বর্তমান সময়ে মূল দলে সুযোগ পাওয়া লিনগার্ড, ড্যানিয়েল জেমস, রাশফার্ডরাও আলো ছড়াচ্ছেন। অন্যদিকে, ম্যানসিটি একাডেমি থেকে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করা কিরিয়েন ট্রিপিয়ের কিছুকাল টটেনহামে খেলে বর্তমানে স্প্যানিশ জায়ান্ট অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদে খেলছেন।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More in ফুটবল