Connect with us

ফুটবল

ফরাসি ফুটবল ইন্ডাস্ট্রিগুলোর অবস্থান এবং অর্জন

বর্তমান সময়ে তরুণ ফুটবলার তৈরিতে সবচেয়ে সফল দেশ ফ্রান্স। ফ্রান্সের কয়েকটি অঞ্চলের ফুটবল দল ও একাডেমিগুলো বিগত বছরগুলোতে অসংখ্য তারকা ফুটবলার গড়ে তুলেছে। ইউরোপিয়ান শীর্ষ ৫ লিগের কয়েকটি বড় দলের একাডেমি থেকেও শক্তিশালী এবং আধুনিক একাডেমি রয়েছে ফ্রান্সের বিভিন্ন শহরে। আর এই একাডেমিগুলোর কল্যাণে ফ্রান্স এই শতাব্দীর শুরুতেই ফুটবলে উল্লেখযোগ্য সফলতা অর্জন করতে শুরু করে।

২০১৮ সালের বিশ্বকাপজয়ী দল; Image Source: IndianExpress

তারই ধারাবাহিকতায় ২০১৮ সালের বিশ্বকাপ জেতে ফ্রান্স। ফরাসিদের বিশ্বকাপজয়ী দলের প্রায় অর্ধেক সদস্যই ছিলেন তরুণ ফুটবলার যাদের ফুটবল জীবনের শুরু বিভিন্ন ফরাসি ফুটবল একাডেমিতে। আজকে ফরাসিদের ফুটবল বিপ্লবের পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করা কয়েকটি অঞ্চলের ফুটবল একাডেমির সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।

মোনাকো

ফ্রান্সের পাশে সমুদ্র তীরবর্তী ছোট্ট দেশ মোনাকো। সারা বিশ্বের হাজার হাজার বিলিয়নিয়ারের আড্ডাস্থল হিসেবে পরিচিত এই দেশটিও ফুটবলের উন্নয়নে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করে। সেখানকার একমাত্র ক্লাব এ এস মোনাকো ফরাসি লিগে ফুটবল খেলে থাকে। যার ফলশ্রুতিতে ফরাসি ফুটবলের সঙ্গেই তাদের সমস্ত কার্যক্রম। ৮ বারের ফ্রেঞ্চ লিগ জয়ী দলটির রয়েছে বিশ্বমানের ফুটবল একাডেমি।

মোনাকোতে বেড়ে উঠা কয়েকজন তারকা; Image Source: Sportskeeda

মোনাকোর এই একাডেমিতে ইউরোপ, আফ্রিকা সহ লাতিন আমেরিকান তরুণরাও ফুটবল প্রশিক্ষণের জন্য ভর্তি হতে পারেন। আর সফল একাডেমি হিসেবে মোনাকোর সুখ্যাতিও ব্যাপক। ২০১৩ সালের পর শীর্ষ ৫ লিগে দলটি খেলোয়াড় বিক্রি করে সবচেয়ে বেশি অর্থ আয় করেছে। থিয়েরে হেনরি, মেন্ডি, কিলিয়েন এমবাপ্পে, জিয়েন লুক ইটোরি, ক্ল্যাউড পুয়িলেদের মতো তারকা ফুটবলারদের ফুটবলীয় আতুরঘর এই মোনাকোতেই।

প্যারিস

তরুণ ফুটবলার তৈরিতে ফ্রান্সে সর্বাধিক এগিয়ে রয়েছে প্যারিস। বিশেষ করে প্যারিস সেইন্ট জার্মেইয়ের ব্যয়বহুল ফুটবল একাডেমি এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করছে। দলটির একাডেমিতে প্রায় ৩০০ জন শিশুকিশোর ফুটবল চর্চা করছে। গত বছরের মার্চে ফ্রান্স জাতীয় দলে ডাক পাওয়া ২৩ জন খেলোয়াড়ের ১০ জনই ছিলেন প্যারিসের।

পিএসজি একাডেমির শিশুরা; Image Source: Guardian

বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা ফুটবলার কিলিয়েন এমবাপ্পেও তার কৈশরে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি বছর পার করেন প্যারিসে। এছাড়াও পগবা, কন্তের মতো তারকা খেলোয়াড়রা ফুটবল চর্চা শুরু করেন এখানে। তাই বলা যায়, ফ্রান্সের অন্য যে কোনো অঞ্চলের তুলনায় প্যারিস বর্তমান সময়ে তরুণ ফুটবলার তৈরিতে এগিয়ে রয়েছে।

সমগ্র উত্তর দক্ষিণাঞ্চল

বেলজিয়াম সীমান্তের গা ঘেঁষে অবস্থিত ফ্রান্সের উত্তর অঞ্চল। কিশোর ফুটবলারদের ফুটবল চর্চার জন্য এ অঞ্চলটি গোটা ফ্রান্স জুড়ে বিখ্যাত। বিশেষ করে উত্তর অঞ্চলের ফুটবল একাডেমিগুলো ফরাসিদের বেশ কদর করে। যার কারণে ফ্রান্সে জন্মগ্রহণ করা শিশু কিশোররা এসব একাডেমিতে সহজেই সুযোগ পায়। রাফায়েল ভারান, ম্যাথিউ, লুকাসের মতো তারকা ফুটবলারদের উত্থান ফ্রান্সের উত্তর অঞ্চল থেকে।

অলিম্পিক লিঁও ফুটবল একাডেমি; Image Source: Olympic Liones

উত্তর অঞ্চলের আরেক বিখ্যাত শহর লিঁও। শহরটি পৃথিবী জুড়ে বিখ্যাত শহরটির ফুটবল ক্লাব ও সমর্থকদের কারণে। করিম বেনজেমা, অলিভিয়ে জিরু, লাকাজেত, নেভিল ফেকিরের মতো তারকা খেলোয়াড়রা অলিম্পিক লিঁও ফুটবল একাডেমি থেকে গ্র্যাজুয়েশন সম্পন্ন করেছিলেন।

লিলি

উত্তরাঞ্চলের ডেলি নদীর তীরবর্তী একটি ঐতিহাসিক শহর লিলি। আর সেখানেই ৭৫ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো লিলি ফুটবল ক্লাবটি। একাধিকবার ফরাসি লিগের শিরোপা জিতলেও বড় কোনো লক্ষ্যে কখনোই পরিকল্পনা সাজায়নি দলটি। যার ফলে দলের কর্তাদের নজর সবসময় ছিলো একাডেমি থেকে তরুণ ফুটবলার তৈরি করে তাদের ছড়া দামে বড় ক্লাবগুলোর নিকট বিক্রি করা।

লিলির তারকা ফুটবলাররা; Image Source: Sportskeeda

কয়েকটি ফরাসি পত্রিকার মতে, লিলি ফুটবল ক্লাবের কর্তারা মূল দলের থেকেও একাডেমিতে দ্বিগুণ অর্থ ব্যয় করেন। তাদের রয়েছে অত্যাধুনিক ট্রেনিং সেন্টার, আবাসন ব্যবস্থা এবং নামিদামি প্রশিক্ষক। ইউরোপের পাশাপাশি আফ্রিকান কিশোর ফুটবলারদের খুব সহজেই ফ্রান্সে এনে ফুটবল প্রশিক্ষণ দেয় দলটি। এত এত আয়োজন এবং বিনিয়োগের ফলশ্রুতিতে যুগে যুগে কিছুসংখ্যক তারকা ফুটবলারকে গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন ক্লাব কর্তারা। ইয়োহান ক্যাবেই, এডেন হ্যাজার্ড, ফ্রাঙ্ক রিবেরি, লুকাস ডাইন, বেঞ্জামিন পাভার্ড, ডিভক অরিগির মত তারকাদের ফুটবল জীবনের সূচনা হয়েছিলো লিলি শহরেই।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More in ফুটবল